ADS
ব্রেকিং নিউজঃ
হোম / টিপস / বিস্তারিত
ADS

ত্বকের যত্নে সঠিক স্ক্রাবটি ব্যবহার করছেন তো?

১৭ জুন ২০২১, ১২:৪০:০৮

সিক স্কিন কেয়ারে ডেইলি ক্লেনজিং, টোনিং, ময়েশ্চারাইজিং, সান প্রোটেকশন সবই করা হচ্ছে। কিন্তু সপ্তাহে ১/২ দিন ত্বকে জমে থাকা ডেড সেলস আর ব্ল্যাকহেডস ক্লিন করা হয় তো? স্ক্রাবিং উইকলি স্কিনকেয়ারের একটি অপরিহার্য ধাপ। এক্সফোলিয়েটর দুই ধরনের, কেমিক্যাল এক্সফলিয়েটর আর ফিজিক্যাল এক্সফলিয়েটর। স্ক্রাবিং ফিজিক্যাল এক্সফলিয়েশনের সবচেয়ে পরিচিত একটা ফর্ম। বাজারে এত ধরনের স্ক্রাব! ত্বকের যত্নে সঠিক স্ক্রাব সিলেকশন নিয়ে অনেকেরই কনফিউশন আছে। আজ আমরা স্ক্রাবিং নিয়ে একটু ডিটেলসে জানবো, সেই সাথে ৫টি স্ক্রাবের রিভিউ শেয়ার করবো যাতে আপনারা নিজের ত্বকের জন্যে বেস্ট প্রোডাক্টটি বেছে নিতে পারেন।

ডেইলি ফেইস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুই, এরপরও কি স্ক্রাবের দরকার আছে?
অবশ্যই আছে! এক্সফোলিয়েশন আর ক্লেনজিং আলাদা দুটো টার্ম। ফেইস ওয়াশ আপনার মুখের উপরিভাগের ময়লা, তেল, মেকআপ এগুলো ক্লিন করে। আর স্ক্রাবের ছোট ছোট দানার মাধ্যমে ম্যাসাজ করে ত্বকের ডেড সেলের লেয়ার আর ব্ল্যাককহেডস রিমুভ করা হয়, অর্থাৎ ডিপ ক্লিনিং হয়। আপনি যদি ড্রাই টু নরমাল স্কিনের অধিকারী হন আর দ্রুত ডেড স্কিন সেলের স্তর জমতে থাকে, তাহলে স্ক্রাবিং তো মাস্ট। নরমাল ক্লেনজার দিয়ে ফেইসের পোরস থেকে ব্ল্যাকহেডস, ডার্ট এগুলো ভালোভাবে পরিষ্কার হয় না। তাহলে এবার ক্লিয়ার হলেন তো যে ডেইলি ফেইস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধোয়ার পরও সপ্তাহে ১ বা ২ দিন স্ক্রাবিং করা জরুরী!

স্ক্রাবিং কাদের জন্য এবং কীভাবে করবো?
টিনেজ থেকে শুরু করে সব বয়সের ছেলে মেয়েরাই সাপ্তাহিক স্কিনকেয়ারে স্ক্রাবিং করতে পারেন। তবে টিনেজারদের খুবই মাইল্ড স্ক্রাব ইউজ করা উচিত, যাতে স্কিনে কোনোরকম হার্শ ফিল না হয়। বেশি পরিমাণে ডেড সেলস জমে স্কিন রাফ হয়ে গেলে স্ক্রাবিংয়ের আগে স্টিমিং বা গরম পানির ভাপ নিতে পারেন। আলতোভাবে সার্কুলার মোশনে নিচে থেকে উপরে ম্যাসাজ করতে হবে, ২/৩ মিনিট ম্যাসাজ করাই এনাফ! এবার মুখে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে ভালভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে। আইস কিউব অ্যাপ্লাই করে নিলে ওপেন পোরগুলো বন্ধ হয়ে যাবে।

তবে, ত্বকে অ্যাক্টিভ একনে বা ব্রণ থাকলে দানাদার স্ক্রাব দিয়ে ঘষাঘষি করা যাবে না। এতে ব্রণ আরও বাড়তে পারে। আর যখনই স্ক্রাবিং করবেন, জোরে জোরে ঘষাঘষি করবেন না, এতে স্কিন সেলস ড্যামেজ হতে পারে।

স্ক্রাবিং না করলে কী হবে?

ত্বকের কোষেরও নির্দিষ্ট বয়সসীমা আছে, স্বাভাবিকভাবেই কোষ পুনর্গঠিত ও রিপ্লেস হয়। নিউ সেল তৈরি হয় আর ডেড সেলসের পরত জমে স্ট্রাটাম কার্নেয়াম সারফেসে ( ত্বকের উপরিভাগের লেয়ার )। সময়মতো এগুলো রিমুভ না করলে ত্বকে নানাধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। মরা কোষের সাথে ত্বকের সেবাম আর ধূলোবালি মিশে রোমকূপ বন্ধ হলেই স্কিন প্রবলেম যেমন ক্লগড পোর, ডার্ক প্যাচ দেখা যায়। ত্বকে সময়ের আগেই এজিং সাইন চলে আসে, উজ্জ্বলতা হারিয়ে যাওয়া, স্কিনের ডালনেস ইত্যাদি সমস্যাও দেখা দিতে পারে। তাহলে বুঝতে পারলেন তো, স্কিনকেয়ারে স্ক্রাবিং ঠিক কতটুকু গুরুত্বপূর্ণ।

৫ টি স্ক্রাবের রিভিউ দেখে নিন
অনেকেই স্কিন কেয়ারে স্ক্রাব ইউজ করতে চাচ্ছেন, বা যারা আগের থেকেই এক্সফলিয়েশন করেন কিন্তু নতুন কোনো প্রোডাক্ট ট্রাই করতে চাচ্ছেন, তাদের জন্যে আজকের আর্টিকেলটি হেল্পফুল হবে আশা করি। চলুন কয়েকটি স্ক্রাবের শর্ট রিভিউ দেখে আসি, এতে আপনি এসব স্ক্রাবের খুঁটিনাটি জানতে পারবেন, সেই সাথে নিজের ত্বকের জন্য বেস্ট প্রোডাক্টটিও বেছে নিতে পারবেন।

এই ব্র্যান্ডের অনেক ধরনের স্ক্রাব আছে, তারমধ্যে গ্রিন টিযুক্ত এই এক্সফোলিয়েটরটি আমার খুবই পছন্দের। আমার অয়েলি এন্ড সেনসিটিভ ত্বকে এটি দারুন স্যুট করে। সব স্কিনটাইপে এই স্ক্রাবটি ইউজ করা যাবে।

১) গ্রিন টি, অলিভ লিফ এক্সট্র্যাক্টযুক্ত, ন্যাচারালি ত্বকের ব্ল্যাকহেডস রিমুভ করে।

২) প্যারাবেন ফ্রি, অয়েল ফ্রি, নন কমেডোজেনিক।

৩) স্যালিসাইলিক এসিডযুক্ত, অ্যাকনেপ্রন স্কিনে ইউজ করা যেতে পারে।

নিউট্রোজেনা ব্র্যান্ডটি নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। পপুলার একটি ব্র্যান্ড আর এদের স্কিন কেয়ার রেঞ্জের সব প্রোডাক্টের ফিডব্যাক বেশ ভালো। তবে ত্বকের ধরন আর চাহিদা বুঝে আপনাকে স্যুইটেবল প্রোডাক্টটি বেছে নিতে হবে আর কি!

ADS ADS

প্রতিছবি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Comments: