ADS
ব্রেকিং নিউজঃ
হোম / সারা বাংলা / বিস্তারিত
ADS

মমেক ও রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৫ মৃত্যু

২৪ জুলাই ২০২১, ১১:১৪:০২

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতাল ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে একদিন আরও ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে মমেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১৪ জন এবং রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত হাসপাতাল দুটির করোনা ইউনিটে তাদের মৃত্যু হয়। মমেক হাসপাতালের মারা যাওয়াদের মধ্যে দুজন করোনায় এবং ১২ জন উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

মমেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. মহিউদ্দিন খান মুন ১১ জনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন। হাসপাতালটিতে করোনায় যারা মারা গেছেন তারা হলেন ময়মনসিংহ সদরের নাজনিন আক্তার এবং টাঙ্গাইলের সখিপুর উপজেলার জেসমিন আক্তার।

করোনার উপসর্গ নিয়ে যারা মারা গেছেন তারা হলেন- ময়মনসিংহ সদরের ইলমা, নাসরিন আক্তার, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার আবদুর রউফ, রাবেয়া আক্তার, নেত্রকোনা সদরের আজিজুন্নেসা, পূর্বধলার আফাজ উদ্দিন, খালিয়াজুড়ির নূর জাহান, জামালপুর সদরের রত্না বেগম, বকশিগঞ্জের আবদুল মান্নাফ, গাজীপুর সদরের আবদুর রাজ্জাক এবং টাঙ্গাইলের রাজিয়া বেগমসহ দুইজন।

হাসপাতালের করোনা ইউনিটে এখনো ৪২৬ জন রোগী ভর্তি আছেন। এর মধ্যে আইসিইউতে রয়েছেন ২২ জন রোগী। নতুন ভর্তি হয়েছেন ৬৬ জন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৭ জন।

অন্যদিকে একই সময়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালটিতে গত এক মাসের মধ্যে সবচয়ে কম মৃত্যুর সংখ্যা এটি।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, রামেক হাসপাতালে গত ২৬ জুন সকাল ৮টা থেকে ২৭ জুন সকাল ৮টার মধ্যে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এরপর উত্তরবঙ্গের বৃহৎ এই হাসপাতালটিতে প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ১২ থেকে ২৫ জন পর্যন্ত মারা গেছেন। গত ৩০ দিনের মধ্যে সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় সর্বনিম্ন ১১ জনের মৃত্যু হলো। নতুন এই সংখ্যা নিয়ে হাসপাতালটির করোনা ইউনিটে চলতি জুলাই মাসে মোট ৪২২ জনের মৃত্যু হলো। গত জুন মাসে মারা যান ৪০৫ জন রোগী।

হাসপাতালের পরিচালক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীর ছয়জন, পাবনার দুজন এবং নাটোর, নওগাঁ ও কুষ্টিয়ার একজন করে মারা গেছেন। এর মধ্যে রাজশাহীর চারজন এবং নওগাঁ, পাবনা ও কুষ্টিয়ার একজন করে মোট সাতজন করোনা পজিটিভ ছিলেন। অন্য চারজন মারা গেছেন করোনার উপসর্গ নিয়ে। তাদের নমুনা পরীক্ষা হয়নি। মৃত ১১ জনের মধ্যে ছয়জন পুরুষ ও পাঁচজন নারী।

তিনি আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৫৭ জন। আর ছাড়পত্র পেয়েছেন ৩৭ জন। শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি ছিলেন ৪১৯ জন। হাসপাতালে এখন মোট করোনা ডেডিকেটেড শয্যা ৫১৩টি।

ADS ADS

প্রতিছবি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Comments: